প্লাবিত হতে পারে ৩৪-৩৫টি জেলা, প্রস্তুত প্রশাসন – ২৪ বাংলাদেশ নিউজ
রবিবার , ১৯ জুন ২০২২ | ১৯শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন ও বিচার
  4. আন্তর্জাতিক
  5. এক্সক্লুসিভ
  6. খুলনা
  7. খেলা
  8. গাজীপুর
  9. চট্টগ্রাম
  10. চাকুরীর খবর
  11. ঢাকা
  12. ফটোগ্যালারি
  13. বরিশাল
  14. বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
  15. বিনোদন

প্লাবিত হতে পারে ৩৪-৩৫টি জেলা, প্রস্তুত প্রশাসন

প্রতিবেদক
২৪ বাংলাদেশ নিউজ বার্তাকক্ষ
জুন ১৯, ২০২২ ১০:২৪ পূর্বাহ্ণ

সিলেট, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার, রংপুর ও কুড়িগ্রাম এলাকা বন্যায় আক্রান্ত হয়েছে। এসব জেলায় প্রায় ৪০ লাখ মানুষ পানির কারণে বিভিন্নভাবে ভোগান্তিতে পড়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। এছাড়া ভারতের মেঘালয় ও আসামে ক্রমাগত বৃষ্টির পরিমাণ বাড়ায় বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি ঘটতে পারে। এ বিষয়ে সতর্ক করে দিয়েছে বন্যা পূর্বাভাস সতর্কীকরণ কেন্দ্র।

 

এ পরিস্থিতি শনিবার (১৯ জুন) একাত্তর টেলিভিশনের ‘সংবাদযোগ’ অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে উপস্থাপক মাহবুব হাসানের প্রশ্নের জবাবে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান বলেন, গত ১২২ বছরে সিলেট-সুনামগঞ্জে এত ভয়াবহ বন্যা কেউ দেখেনি। ১৬ এবং ১৭ জুন- দুইদিনে প্রায় ৮ ফুট পানি বেড়েছে ওই অঞ্চলে।

 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিস্তর অঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। সিলেটের প্রায় ৮০ ভাগ আর সুনামগঞ্জের প্রায় ৯০ ভাগ জায়গা তলিয়ে গেছে। এ মুহূর্তে আমাদের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ সবাইকে উদ্ধার করা এবং আশ্রয় কেন্দ্রে মানবিক সহায়তা দেয়া। সে অনুযায়ী আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

 

তিনি বলেন, আমাদের মাঠ প্রশাসন ১৬ জুন থেকে কাজ করছিলো। পরবর্তী প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ১৭ জুন থেকে সেনাবাহিনী এবং নৌ-বাহিনী ও কোস্ট-গার্ড ১৮ জুন থেকে কাজ শুরু করেছে।

 

এছাড়া ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ, আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা এবং সেচ্ছাসেবীরা মানুষের জন্য কাজ করে যাচ্ছে, যোগ করেন প্রতিমন্ত্রী।

 

আশ্রয়কেন্দ্রে কি পরিমাণ মানুষ আশ্রয় নিয়েছেন তা জানাতে গিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, সুনামগঞ্জের ৩৫০টি আশ্রয়কেন্দ্র ৭০ হাজারের বেশি মানুষকে আশ্রয় দেওয়া হয়েছে। সিলেটে ৩০০ আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছেন প্রায় ৩৫ হাজার মানুষ।

 

 

 

তিনি বলেন, এসব আশ্রয়কেন্দ্র মানুষকে সহায়তার জন্য ১৫ থেকে ১৭ জুন তিনদিনে সরকার ১ কোটি ৬০ লাখ টাকা, দেড় হাজার মেট্রিক টন চাল এবং ৩২ হাজার প্যাকেট শুকনা খাবার দিয়েছে।

 

শুধু আশ্রয় কেন্দ্রে সহায়তাই পর্যাপ্ত কিনা এমন প্রশ্নের এনামুর রহমান বলেন, আমরা ঘরে ঘরেও সহায়তা পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করছি। ওসব এলাকায় যদি পানি আরো বাড়ে আমরা আরো বেশি মানুষকে আশ্রয় দেওয়ার প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি।

 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা বিত্তশালীদের মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহবান জানিয়েছি। তাছাড়া আমাদের নিজেদেরও পর্যাপ্ত চাল ও শুকনা খাবার রয়েছে। এছাড়া আজও প্রধানমন্ত্রী আরো ২০ কোটি টাকা প্রদান করেছেন। যেগুলো দিয়ে আমরা খাদ্যসহ অন্যান্য সহায়তাগুলো করতে পারবো।

 

তিনি আরো বলেন, আমরা আরো ৯টি জেলা প্লাবিত হওয়ার সংবাদ পেয়েছি। সেসব জেলায়ও সহায়তা কার্যক্রম শুরু হয়েছে। আমরা ধারণা করছি ৩৪ থেকে ৩৫টি জেলা বন্যা কবলিত হবে। শুধু সুরমা না আরো কয়েকটি নদীর পানি বেড়েছে।

সর্বশেষ - এক্সক্লুসিভ