শনিবার , ৩০ জুলাই ২০২২ | ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন ও বিচার
  4. আন্তর্জাতিক
  5. এক্সক্লুসিভ
  6. খুলনা
  7. খেলা
  8. গাজীপুর
  9. চট্টগ্রাম
  10. চাকুরীর খবর
  11. ঢাকা
  12. ফটোগ্যালারি
  13. বরিশাল
  14. বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
  15. বিনোদন

শ্রীলঙ্কাকে নতুন ঋণ দেবে না বিশ্বব্যাংক

প্রতিবেদক
২৪ বাংলাদেশ নিউজ বার্তাকক্ষ
জুলাই ৩০, ২০২২ ১২:৫৫ অপরাহ্ণ

অর্থনৈতিক সংকটে থাকা শ্রীলঙ্কাকে নতুন করে ঋণ দেবে না বলে জানিয়েছে বিশ্বব্যাংক। দেশটিতে স্থিতিশীলতা ফেরার আগে আর্থিক সহায়তার পরিকল্পনা নেই তাদের।
এদিকে, শ্রীলঙ্কার অর্থনৈতিক পরিস্থিতি সামাল দিতে সব দলের সাথে বৈঠক শুরু করেছেন প্রেসিডেন্ট রনিল বিক্রমাসিংহে। সর্বদলীয় সরকার গঠনকে সামনে রেখেই চলছে এই আলোচনা। জোট সরকার গঠনে বিরোধী দলগুলোর সাথে সপ্তাহব্যাপী বৈঠক করবেন তিনি।
এ আলোচনায় প্রধান বিরোধী দল যোগ না দিলেও, নতুন সরকারে যোগ দিতে আগ্রহ জানিয়েছে আরেক বিরোধী দল ন্যাশনাল ফ্রিডম ফ্রন্ট। আর এ দলটির নেতা সম্প্রতি প্রেসিডেন্ট পদের জন্য লড়াই করা দুলাস আলাহাপ্পেরুমা।
দক্ষিণ এশীয় দেশটি এপ্রিলে তার ৫১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বিদেশি ঋণে খেলাপি হয়েছিল এবং এই মাসের শুরুর দিকে ব্যাপক বিক্ষোভের মুখে রাষ্ট্রপতি গোটাবায়া রাজাপক্ষে দেশ ছেড়ে পালাতে এবং পদত্যাগ করতে বাধ্য হন।
বিশ্বব্যাংক বলেছে, তারা শ্রীলঙ্কার জনগণের সংকটের প্রভাব সম্পর্কে উদ্বিগ্ন কিন্তু সরকার প্রয়োজনীয় সংস্কার না করা পর্যন্ত অর্থায়ন করবে না। একটি পর্যাপ্ত সামষ্টিক অর্থনৈতিক নীতি কাঠামো না হওয়া পর্যন্ত তারা শ্রীলঙ্কায় নতুন অর্থায়নের পরিকল্পনা করছে না। এই সংকট সৃষ্টিকারী মূল কাঠামোগত কারণগুলোকে মোকাবেলার জন্য এর গভীর কাঠামোগত সংস্কার প্রয়োজন।
বিশ্বব্যাংক বলেছে যে তারা জরুরিভাবে প্রয়োজনীয় ওষুধ, রান্নার গ্যাস এবং স্কুলের খাবারের জন্য বিদ্যমান ঋণ থেকে ১৬ কোটি মার্কিন ডলার সরিয়ে নিয়েছে।
শ্রীলঙ্কা বর্তমানে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের সাথে আর্থিক সহায়তা দেয়ার আলোচনায় রয়েছে। তবে কর্মকর্তারা বলছেন যে প্রক্রিয়াটি কয়েক মাস সময় নিতে পারে।
দ্বীপ দেশটি এমনকি সবচেয়ে প্রয়োজনীয় আমদানির জন্য অর্থায়নের জন্য বৈদেশিক মুদ্রার ফুরিয়ে গেছে এবং দীর্ঘস্থায়ী ঘাটতি জনগণের ক্ষোভকে বাড়িয়ে দিয়েছে।
গাড়ি চালকরা রেশনযুক্ত পেট্রোল পেতে সারাদিন দীর্ঘ লাইনে থাকেন এবং সরকারি কর্মকর্তাদের যাতায়াত কমাতে এবং জ্বালানি সাশ্রয় করতে বাড়ি থেকে কাজ করতে বলা হয়েছে।
ইউএন ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম অনুমান করেছে সংকট শ্রীলঙ্কার প্রতি ছয়টি পরিবারের মধ্যে পাঁচটি পরিবারকে নিম্নমানের খাবার কিনতে, কম খেতে বা কিছু ক্ষেত্রে সম্পূর্ণভাবে খাবার এড়িয়ে যেতে বাধ্য করেছে।
তার উত্তরসূরি রনিল বিক্রমাসিংহে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছেন এবং সমস্যা সৃষ্টিকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেয়ার নির্দেশ দেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে।
গণ বিক্ষোভে নেতৃত্বাদনকারী বেশ কয়েকজন কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়।

সর্বশেষ - এক্সক্লুসিভ