মঙ্গলবার , ১৬ আগস্ট ২০২২ | ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন ও বিচার
  4. আন্তর্জাতিক
  5. এক্সক্লুসিভ
  6. খুলনা
  7. খেলা
  8. গাজীপুর
  9. চট্টগ্রাম
  10. চাকুরীর খবর
  11. ঢাকা
  12. ফটোগ্যালারি
  13. বরিশাল
  14. বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
  15. বিনোদন

উত্তরায় গার্ডার চাপায় নিহতের ঘটনায় জামালপুরে পরিবারে শোকের মাতম

প্রতিবেদক
২৪ বাংলাদেশ নিউজ বার্তাকক্ষ
আগস্ট ১৬, ২০২২ ৮:১৫ অপরাহ্ণ

রাজধানীর উত্তরায় গার্ডার চাপা ঘটনায় জামালপুরের ইসলামপুর ও মেলান্দহে নিহত পরিবারে স্বজনদের শোকের মাতম চলছে। সোমবার (১৫ আগস্ট) বিকেলের দিকে রাজধানীর উত্তরার জসিমউদ্দীন রোডে র‍্যাপিড ট্রানজিট সিস্টেম’র (বিআরটি) প্রকল্পের ফ্লাইওভারের গার্ডারটি ক্রেন থেকে উল্টে একটি প্রাইভেট কারের ওপর পড়ে। এসময় প্রাইভেট কারে থাকা দুই শিশুসহ ৫ যাত্রী নিহত হয়।

নিহতরা হলেন জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলার পাথর্শী ইউনিয়নের ঢেংগারগ্রামের ফজলু শেখের দুই মেয়ে ফাহিমা (৩৫) ও ঝর্ণা (২৮) এবং ঝর্ণার মেয়ে জান্নাতুল(৬)ও জাকারিয়া (২)সহ ফাহিমার বেয়াই ঢাকার বাসিন্দা মো. রুবেল (৫০)।

নিহত ফাহিমার মেয়ের বিয়ের বৌভাত অনুষ্ঠান শেষ সবাই বাসায় ফেরার সময় এই দূর্ঘটনা ঘটে। নিহত ফাহিমা ও ঝর্ণার পিতার বাড়ী জামালপুরে ইসলামপুরে ঢেংগারগড় গ্রামে শোকের মাতম চলছে।

গতকাল বিকেলে রাজধানীর উত্তরা এলাকায় প্যারাডাইস টাওয়ারের সামনে বিআরটি প্রকল্পের একটি গার্ডার গাড়ির ওপরে পড়ে। এতে গাড়িতে থাকা ৫ জনের মৃত্যু হয়। বেঁচে যান দু’জন।

গার্ডারটি গাড়িটির দুই-তৃতীয়াংশ জায়গার ওপরে পড়ে। বামপাশের দু’জন সৌভাগ্যক্রমে বেঁচে গেলেও গাড়িচালকের সিটে বসা রুবেল মিয়া, ফাহিমা বেগম ও তার বোন ঝর্ণা বেগম এবং ঝর্ণার দু’সন্তান ঘটনাস্থলে মারা যায়। শুধুমাত্র বেঁচে ছিল ২৬ বছর বয়সী হৃদয় ও ২১ বছর বয়সী তার স্ত্রী রিয়ামনি।

প্রত্যক্ষদর্শী সজীব হোসেন বলেন, হঠাৎ ক্রেন পড়ে যাওয়ার শব্দ শুনে দেখি গাড়ি গার্ডারের নিচে পিষ্ট হয়ে গেছে। আমরা দ্রুত ওখানে গিয়ে দেখি কয়েকজন জীবিত আছেন। এ সময় শাবল, করাত সংগ্রহ করে গাড়ি কাটা শুরু করলে দু’জনকে জীবিত উদ্ধার করা সম্ভব হয়।

তিনি বলেন, শিশু জাকারিয়া মায়ের কোলে ছিল। গার্ডারটির চাপ ওর পায়ে পড়লেও মাথা ও বুক অক্ষত ছিল, তখনও তাকিয়ে কাঁদছিল। সে সময় তাকে বের করার চেষ্টা করলেও ক্রেনের চাপে বের করা যায়নি। শিশুটির পা কেটে ফেললে হয়তো বাঁচানো যেতো। কিন্তু সে কাজ তো আমরা করতে পারিনা। প্রশাসনের কেউ এগিয়ে আসলে শিশুটি বেঁচে যেতো।

ফায়ার সার্ভিস আসার আগেই শিশু জাকারিয়ার মৃত্যু হয়। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা দীর্ঘ চেষ্টার পর একটি যন্ত্রের সাহায্যে গার্ডারটি গাড়ির ওপর থেকে সরানোর সময় শিশু জাকারিয়া তার মা ঝরনার কোলে ছিল। এ অবস্থাতেই মৃত্যু হয় মা-ছেলের।

নিহতদের স্বজন জাহিদ হাসান শুভ বলেন, আমাদের এক পুলিশ ফোন দিয়ে দুর্ঘটনার কথা জানান। আমরা এয়ারপোর্ট থেকে এসে দেখি গাড়ি গার্ডারের নিচে চাপা পড়ে আছে৷ ভাগনি আর ভাগনি জামাইকে বের করে বসিয়ে রাখা হয়েছে।

সর্বশেষ - এক্সক্লুসিভ