শনিবার , ২১ জানুয়ারি ২০২৩ | ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অপরাধ
  2. অর্থনীতি
  3. আইন ও বিচার
  4. আন্তর্জাতিক
  5. এক্সক্লুসিভ
  6. খেলা
  7. চাকুরীর খবর
  8. ফটোগ্যালারি
  9. বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি
  10. বিনোদন
  11. বিবিধ
  12. রাজধানী
  13. রাজনীতি
  14. শিক্ষা
  15. শিল্প ও সাহিত্য

এক বছরের মধ্যে উৎপাদনে যাবে মাতারবাড়ী বিদ্যুৎকেন্দ্র

প্রতিবেদক
বার্তা কক্ষ
জানুয়ারি ২১, ২০২৩ ২:৫৮ অপরাহ্ণ

আগামী বছরের জানুয়ারিতেই বাণিজ্যিক উৎপাদনে যাবে মাতারবাড়ি কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রথম ইউনিট। এরই মধ্যে প্রকল্পের কাজ শেষ হয়েছে প্রায় ৭৫ শতাংশ। জ্বালানি ও বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলছেন, সময়মতো মাতারবাড়ির বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যুক্ত করতে সঞ্চালন লাইনের কাজও বাড়তি গতি পেয়েছে। নিজস্ব জেটির মাধ্যমে সরাসরি বড় জাহাজ থেকে কয়লা খালাসের ব্যবস্থা এ বিদ্যুৎকেন্দ্রকে বিশেষ সুবিধা দিবে।



বঙ্গোপসাগরের কোলঘেষে একসময়ের উপকূলীয় জলাভূমিতে এখন চলছে মহাকর্মযজ্ঞ। ১৬০৮ একর জমিতে গড়ে উঠছে কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র। প্রকল্পটিতে প্রাকৃতিক বিপর্যয় প্রতিরোধে দেয়া হচ্ছে সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১৪ মিটার উঁচু বাধ।
প্রায় ৭শ একর জায়গায় ছাই মজুদের জন্য নির্মাণ করা হয়েছে দুটি অ্যাশপন্ড। বিশালাকার ৪টি শেডে রাখা যাবে ২ মাসের প্রয়োজনীয় কয়লা। বয়লার, টারবাইন জেনারেটর স্থাপন, প্রি-কমিশনিং এর প্রস্তুতিও চলছে প্রথম ইউনিটের।
জ্বালানি ও বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, ২০২৪ সালের জুলাই নাগাদ দ্বিতীয় ইউনিট চালুর লক্ষ্য আছে। সবমিলিয়ে ১২০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে প্রতিদিন দরকার হবে ১৩ হাজার টন কয়লা। সহজে কয়লা পরিবহনে খনন করা হয়েছে গভীর সমুদ্র থেকে ১৪ কিলোমিটার দীর্ঘ চ্যানেল।


নসরুল হামিদ আরও বলেন, তুলনামূলক সাশ্রয়ী কয়লাভিত্তিক এই বিদ্যুৎ সময়মত জাতীয় গ্রিডে পেতে সঞ্চালন লাইন স্থাপনও বাড়তি গুরুত্ব পাচ্ছে।

প্রায় ৫২ হাজার কোটি টাকার এ প্রকল্পে ৪৪ হাজার কোটিরই জোগান দিচ্ছে জাপানী দাতা সংস্থা জাইকা। বাকিটা সরকার ও কোলপাওয়ার কোম্পানি।

সর্বশেষ - সারাবাংলা